Breaking News

অমিত শাহ’র কর্মসূচিতে পরিবর্তন কেন? দলের অন্দরেই দুই মত

Why the change in Amit Shah's program? There are two types within the team

ইস্টার্ন টাইমস , কলকাতা: এই সপ্তাহেই দুদিনের বঙ্গ সফরে আসছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। আগে ঠিক ছিলো আগামী শনিবার অমিত শাহ উত্তর-২৪ পরগনার বনগাঁয় মতুয়াদের একটি সভায় ভাষণ দেবেন।কিন্তু হটাৎই বনগাঁর কর্মসূচি বাতিল করা হয়।

কেন এই কর্মসূচি বাতিল করা হলো তা নিয়ে বিজেপির অন্দরেই শোনা যাচ্ছে দু’রকমের ভাষ্য। একপক্ষের বক্তব্য , কিছুদিন আগেই বিজেপি সাংসদ ও মতুয়া নেতা শান্তনু ঠাকুর প্রশ্ন তুলেছিলেন।

প্রতিশ্রুতি দেয়া সত্ত্বেও মতুয়াদের এখনো নাগরিকত্ব দেয়া হলো না কেন? কেন বিজেপি কথার খেলাপ করল? মোদী-শাহের রাজত্বে সচরাচর প্রকাশ্যে কোনো সাংসদ দলের বিরুদ্ধে এই ধরনের মন্তব্য করেন না।

শান্তনুর কথায় বোঝা গেছিল, তাঁর উপর চাপ কতটা মারাত্মক এবং একইসঙ্গে বিজেপি-র বিরুদ্ধে মতুয়াদের ক্ষোভ কতটা প্রবল।

সেই ক্ষোভের আঁচ পেয়েই আপাতত মতুয়াদের কাছে যাওয়ার পরিকল্পনা বাতিল করেছেন অমিত শাহ, দাবি বিজেপি সূত্রের। আগে বলা হয়েছিল, বনগাঁয় সভা করতে যাওয়ার আগে তিনি মতুয়াদের কাছে যাবেন।

আগামী ১৯ ডিসেম্বর তিনি পশ্চিমবঙ্গে যাচ্ছেন। তাঁর সফরের যে বিবরণ এখন দলীয় স্তরে দেয়া হয়েছে, তাতে মতুয়াদের কাছে যাওয়ার বিষয়টি নেই। রাজ্য বিজেপির এক নেতা জানিয়েছেন, ”অমিত শাহ এখন প্রত্যেক মাসেই পশ্চিমবঙ্গ সফর আসবেন। তাই কোনো কারণে এ বার তিনি মতুয়াদের কাছে যেতে পারছেন না। পরে যাবেন।”

তাঁর দাবি. ”শান্তনু ঠাকুরের সঙ্গে কৈলাশ বিজয়বর্গীয়ের কথা হয়েছে। ভুল বোঝাবুঝি মিটে গেছে।”

সেই বৈঠকের পর কৈলাশ জানিয়েছেন, জানুয়ারি থেকেই মতুয়াদের নাগরিকত্ব দেয়া শুরু হবে।অন্যদিকে বিজেপিরই অন্য একটি সূত্র জানিয়েছে , জরুরি ভিত্তিতে বনগাঁর কর্মসূচি বাতিল করে ১৯শে ডিসেম্বর পূর্ব-মেদিনীপুর যাচ্ছেন অমিত শাহ, শুভেন্দু অধিকারীকে দলে স্বাগত জানাতে। কোন সূত্রের কথা ঠিক তা বোঝা যাবে আগামী শনিবার।

উল্লেখ্য ,বিজেপি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো , নতুন নাগরিকত্ব আইন অনুসারে মতুয়াদের নাগরিকত্ব পাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো বাধা থাকবে না। কিন্তু সেই প্রতিশ্রুতিও এতদিনে কার্যকর হয়নি।

এখন সেই মতুয়াদের ভোট পাওয়ার জন্য রীতিমতো রাজনৈতিক লড়াই চলে। আগে এই ভোট গিয়েছিল তৃণমূলে। মমতাবালা ঠাকুর সাংসদ হয়েছিলেন। গত লোকসভায় জিতেছেন বিজেপি-র শান্তনু ঠাকুর। সম্প্রতি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হারানো জমি ফিরে পাওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করছেন।

তিনি গত ১০ নভেম্বর গোপালনগরে গিয়ে জনসভা করে বলেছেন, মতুয়া উন্নয়ন পর্ষদের দাবি মানা হয়ে গেছে। পর্ষদকে ১০ কোটি টাকা দেয়া হয়েছে। মতুয়ারা হরিচাঁদ ঠাকুরের জন্মতিথিতে ছুটি চেয়েছিলেন।

সেটাও মেনে নিয়েছেন মমতা। পাঠ্যপুস্তকে হরিচাঁদ ও গুরুচাঁদ ঠাকুরের জীবনী ও বাণী পড়ানোর সিদ্ধান্তও পাকা। শান্তনু ঠাকুরও এই সব সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন।

ফলে এই অবস্থায় অমিত শাহ যদি মতুয়াদের কাছে যেতেন, তা হলে তাঁকে নাগরিকত্ব দেয়ার ব্যাপারে নির্দিষ্ট করে কিছু জানাতে হতো। না হলে বিজেপি-র পক্ষে পরিস্থিতি আরো খারাপ হতো।

অমিত শাহের পক্ষে এখনই সেরকম কোনো প্রতিশ্রুতি দেয়া বোধহয় সম্ভব নয়। তাই তিনি এ যাত্রায় মতুয়াদের কাছে যাচ্ছেন না।

কিন্তু দলীয় সূত্র জানাচ্ছে, মতুয়াদের ক্ষোভ দূর করতে না পারলে বিধানসভা নির্বাচনে তার প্রভাব পড়তে পারে। সুবিধা হবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। কারণ, প্রায় ৭০টি কেন্দ্রে প্রভাব ফেলার ক্ষমতা মতুয়াদের আছে।

Vinkmag ad

Eastern Times

Read Previous

মার্চে কলকাতা পুরসভার নির্বাচন চাইছে রাজ্য সরকার

Read Next

কৃষক আন্দোলন নিয়ে আবার প্রধানমন্ত্রীর নিশানায় বিরোধীরা

Leave a comment

You have successfully subscribed to the newsletter

There was an error while trying to send your request. Please try again.

easterntimes will use the information you provide on this form to be in touch with you and to provide updates and marketing.