Breaking News

বিজেপির কর্মসূচির শুরুর পর থেকেই অশান্তি চরমে

escalated since the beginning of the BJP's program

The unrest has escalated since the beginning of the BJP’s program

ইস্টার্ন টাইমস ,কলকাতা: বিজেপি যুব মোর্চার ডাকে নবান্ন অভিযান ঘিরে সকাল থেকেই অশান্ত হয়ে উঠেছে কলকাতা ও হাওড়া। বিজেপির কর্মসূচির শুরুর পর থেকেই অশান্তি চরমে।কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় ব্যাপক ঝামেলা শুরু হয়েছে বিজেপি কর্মী-সমর্থক এবং পুলিশদের ঘিরে।

শহরের একাধিক এলাকায় জলকামান, লাঠিচার্য করে মিছিল ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে পুলিশ। ইতিমধ্যে হাওড়া ব্রিজে শুরু হয়েছে অশান্ত পরিবেশ। হাওড়া ও কলকাতার চারটি জায়গা থেকে বিজেপির মিছিল যাওয়ার চেষ্টা করে নবান্নের দিকে।সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ, হেস্টিংস, সাঁতরাগাছি এবং হাওড়া ময়দান প্রস্তুত এই মিছিল ঘিরে। সর্বত্র চলেছে শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি।

এদিকে তৈরি পুলিশও। একাধিক জায়গায় ইতিমধ্যেই ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। সাঁতরাগাছি শুরু হয়েছে ব্যারিকেড ভাঙার বিক্ষোভ। সেখানে মিছিলের নেতৃত্বে রয়েছেন সায়ন্তন বসু, রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়রা।

এদিন সকালে হুগলি থেকে হাওড়ায় ঢোকার সমস্ত রাস্তাতেই পুলিশ বিজেপি কর্মীদের মধ্যে বেঁধে যায় খণ্ডযুদ্ধ। ডানকুনিতে পুলিশের বিরুদ্ধে বিজেপি কর্মীদের অভিযোগ মিছিলে যোগ দিতে আসার সময় পুলিশ তাদের বাস আটকায়। গাড়ি ভাঙচুর করে পুলিশ। অবস্থান-বিক্ষোভে বসে পড়ে বিজেপি কর্মীরা।

ডানকুনিতে পুলিশ আগে থেকেই মজুত রেখেছিল জলকামান। মোতায়েন বিশাল পুলিশ বাহিনী। বিজেপির অভিযোগ, নবান্ন থেকে ডানকুনি অনেকটাই দূর। নবান্ন অভিযান আটকাতে এতদূরে পুলিশ বাস আটকে গাড়ি ভাঙচুর করেছে। যাতে বিজেপি কর্মীরা নবান্ন অব্দি পৌঁছাতে না পারে সে কারণেই ডানকুনিতে আটকে দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে রাজ্য পুলিশ। প্রতিবাদে রাস্তাতেই বসে পড়েন বিজেপির কর্মীরা। এর ফলে ২ নম্বর জাতীয় সড়ক কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। অভিযোগ, পুলিশ লাঠিচার্জ করে অবরোধকারীদের সরিয়ে দেয়।

ধুলাগড় টোল প্লাজার কাছে বিজেপি কর্মীদের বাস আটকে দেয় পুলিশ। ওই বাসগুলি পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর থেকে আসছিল।

এরপর বিজেপি কর্মীরা বাস থেকে নেমে ৬ নম্বর জাতীয় সড়কের দুটি লেন অবরোধ করেন। পাটুলির কাছে ঢালাই ব্রিজে বিজেপির মিছিল আটকাল পুলিশ।

এদিকে, বৃহস্পতি ও শুক্রবার স্যানিটাইজেনশনের জন্য নবান্ন বন্ধ থাকবে বলে গতকালই জানিয়ে দিয়েছে রাজ্য সরকার।তবুও নবান্নের চারপাশে কড়া সতর্কতা। এলাকায় ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না কাউকেই। স্থানীয়দেরও চলাফেরাতেও বিধি নিষেধ জারি করা হয়েছে। ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না সংবাদমাধ্যমকেও।

নবান্নমুখী রাস্তায় চারটি স্তরে ব্যারিকেড। মল্লিক ফটকের কাছেও ব্যারিকেড তৈরি করেছে পুলিশ। আশপাশের বাড়ির নীচের গেট আটকে দেওয়া হয়েছে। চালানো হচ্ছে ড্রোনের সাহায্যে নজরদারি। বিদ্যাসাগর সেতুর ওপর নবান্নমুখী সমস্ত রাস্তা বন্ধ। গাড়ি ঘুরিয়ে দেওয়া হচ্ছে আন্দুল রোডের দিকে।রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু জানিয়েছেন, ‘যেখানে মিছিলে বাধা আসবে সেখানেই তাঁরা অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করবেন।

Vinkmag ad

Eastern Times

Read Previous

প্রধানমন্ত্রীর কাছে মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ ত্রিপুরার সাংবাদিকদের

Read Next

আই লিগ ট্রফি আসা একদিন পিছিয়ে গেলেও আছে সমর্থক দের জন্য চমক

Leave a comment

You have successfully subscribed to the newsletter

There was an error while trying to send your request. Please try again.

easterntimes will use the information you provide on this form to be in touch with you and to provide updates and marketing.