Breaking News

মাঝেরহাট ব্রিজ পুনঃনির্মাণের কাজ শেষ করলো রাজ্য পূর্ত দপ্তর

ইস্টার্ন টাইমস ,নয়াদিল্লি : ভেঙে পড়া মাঝেরহাট ব্রিজ (Majerhat Bridge) নতুন করে নির্মাণের কাজ ইতিমধ্যেই শেষ করে ফেলেছে রাজ্য সরকার। রবিবার যাওয়া এবং আসা দুই অংশেই বিটুমিন ও কংক্রিট করে হেভিওয়েট রোলার চালিয়ে নির্মাণ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করালেন পূর্ত দপ্তরের কর্মীরা।

বজবজ লাইনের উপরে ব্রিজের ঝুলন্ত অংশের ‘সেফটি-সিকিউরিটি’ সার্টিফিকেট এবং বহন ক্ষমতা পরীক্ষার অনুমতি চেয়ে রেলকে চিঠি পাঠিয়েছিল পূর্ত দফতর।

রেলের তরফে সেই সবুজ সংকেতও এসে গিয়েছে। রাজ্যের পূর্তমন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস জানালেন, ‘ভারবহন ক্ষমতা টেস্ট ও দু’পাশের কেবল ফিক্সড সম্পূর্ণ করলে ব্রিজ চালু করা হবে।কেবল ফিক্সড নিয়ে বিশেষজ্ঞ ও ইঞ্জিনিয়াররা খুবই সতর্ক এবং সুক্ষ্ম নজরদারির মধ্যে কাজ হচ্ছে।’

রেলের সেফটি ও সিকিউরিটি সার্টিফিকেট পেলে ব্রিজটি উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ৪ সেপ্টেম্বর বিকেল পৌনে পাঁচটা নাগাদ ঘটে যায় মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। মাঝেরহাট ব্রিজ ভেঙে পড়ে। প্রাণ হারান ৫ জন এবং আহত হন বেশ কয়েকজন। পূর্ত দপ্তরকে নতুন উড়ালপুল তৈরির দায়িত্ব দেন মুখ্যমন্ত্রী।

কিন্তু রেলের অনুমতির জন্য কাজ শুরু করতেই লেগে যায় নয় মাস। গত মার্চ মাস থেকে করোনা পরিস্থিতির কারণে তিনমাসের বেশি নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়।

দ্বিতীয় হুগলি সেতুর ধাঁচে ২৫০ কোটি খরচে ৬৫০ মিটার দীর্ঘ এই নতুন মাজেরহাট ব্রিজ তৈরি করা হয়েছে। নতুন মাজেরহাট ব্রিজটি চার লেনের।

নতুন এই ব্রিজটির ২২৭ মিটার অংশ কেবলের মাধ্যমে ঝুলন্ত অবস্থায় তৈরি করা হয়েছে। এর মধ্যে ১০০ মিটার ব্রিজ রেলের লাইনের উপরে ঝুলছে। রেল লাইনের মাঝখানের পুরোনো পিলার তিনটি শীঘ্রই ভেঙে ফেলা হবে।

পূর্ত দফতরের ভারপ্রাপ্ত শীর্ষকর্তা জানান, ‘নতুন ব্রিজের নির্মাণ শেষ হওয়ার পরেও ভারবহন ক্ষমতা ও কেবল ফিক্সড করাটা আরও কঠিন কাজ।

সেটাই এখন বাকি। ব্রিজটি চালু হলে ফের কলকাতার সঙ্গে দক্ষিণ ২৪ পরগনা ও শহরতলির যাতায়াত আগের মতই অনেক সহজ হয়ে যাবে। কয়েকদিনের মধ্যেই পূর্ত দফতর লোড টেস্টিং করার কাজ শুরু করবে’।

উল্লেখ্য, নতুন ব্রিজের ভারবহন ক্ষমতা সর্বাধিক ৩৮৫ টন। পূর্ত দপ্তর সূত্রে খবর, মালভর্তি অনেকগুলি ট্রাক একসঙ্গে ব্রিজের উপর তুলে ভারবহনের পরীক্ষা করা হবে। যখন সর্বাধিক লোড হবে তখন কেবলের সম্প্রসারণ এবং ভারহীন অবস্থায় কতটা সংকোচন হয় তা বিশেষ মানের সেন্সর লাগিয়ে পরীক্ষা করবেন পূর্ত দপ্তরের বিশেষজ্ঞ ইঞ্জিনিয়াররা।

সেতুটি চালুর পরেও এই সেন্সর ২৪ ঘণ্টাই কাজ করবে বলে জানিয়েছেন পূর্ত দপ্তরের আধিকারিকরা। ২৫ নভেম্বর ব্রিজটি চূড়ান্ত পরিদর্শনে ফের আসবেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস।

Vinkmag ad

Eastern Times

Read Previous

চোট পেলেন বরুণ, অস্ট্রেলিয়ায় যাওয়া অনিশ্চিত

Read Next

প্রথম টেস্ট খেলেই অস্ট্রেলিয়া থেকে দেশে ফিরছেন বিরাট, টেস্ট দলে এলেন রোহিত

Leave a comment

You have successfully subscribed to the newsletter

There was an error while trying to send your request. Please try again.

easterntimes will use the information you provide on this form to be in touch with you and to provide updates and marketing.