Breaking News

বঙ্গ রাজনীতিতে দলবদলের নতুন রঙ্গের আগমনী সুর

বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য

প্রকৃতির সঙ্গে যাদের যোগ থাকে তারা নাকি ভূমিকম্প বা সুনামির আভাস আগেই পেয়ে যান। বঙ্গ রাজনীতিতে যাদের পা মাটিতে তারা নাকি রাজ্য রাজনীতিতে বড়োসড়ো আলোড়নের আভাস পাচ্ছেন।

করোনা আবহে সব কিছু পিছনের সারিতে চলে গেলেও রাজনীতি স্বমহিমাতেই বিরাজমান। বিধানসভা নির্বাচন পাঁচ-ছয় মাস দূরে থাকলেও রাজনীতির পালে জোরালো হাওয়া বইতে শুরু করেছে। লোকসভা নির্বাচনে সাফল্যের উপর ভর করে ক্ষমতায় ফেরা আশা করছে বিজেপি।যারা নিজেদের ‘party with the difference’ বলে থাকে সেই বিজেপিতে নানান গোষ্ঠীর কোন্দল চলছে।

পরিস্থিতি এমনই যে দিল্লি থেকে হস্তক্ষেপ করতে হচ্ছে। দুদিন পরেই অমিত শাহ আসছেন রাজ্যে। শোনা যাচ্ছে ঘরোয়া ঝগড়া মেটাতে তিনি কিছু দাওয়াই দেবেন।

শাসক দলে অবশ্য বড়োসড়ো আলোড়নের আশঙ্কা করছে রাজনৈতিক মহল।কদিন ধরেই দলের বড় নেতা ও পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে রাজনীতি সরগরম। কয়েক দিন ধরে রাজ্যের মন্ত্রী বা তৃণমূল নেতার পরিচয় আড়ালে রেখে ধারাবাহিক ভাবে বিজয়া সম্মেলন নিয়ে ব্যস্ত শুভেন্দু।

এর মধ্যে অনেকেই বিদ্রোহের গন্ধ পাচ্ছেন। বেশ কিছুদিন ধরেই দলের সঙ্গে দূরত্ব বাড়িয়েছেন তিনি। সম্প্রতি দলীয় কর্মসূচি ও মন্ত্রিসভার বৈঠকে তাঁকে দেখা যাচ্ছে না। পাশাপাশি বিজয়া সম্মিলনীর আমন্ত্রণ পত্রের গেরুয়া রং ও পাগড়ি পরা শুভেন্দুর ছবিতে জল্পনা তুঙ্গে উঠেছে।

সেখানে যেমন তার দলীয় পরিচয় নেই তেমন ই উদ্যোক্তা হিসেবে শুধু বলা হয়েছে দাদার অনুগামীরা। এইসব অনুষ্ঠানে নাম না করে আক্রমণাত্মক বক্তব্য বলে চলেছেন শুভেন্দু। আগামী দশই নভেম্বর শহিদ স্মরণে নন্দীগ্রামে সমাবেশ করবেন বলে জানিয়েছেন শুভেন্দু।

ওই দিন বড়োসড়ো কোনো ঘোষণা হতে পারে বলে অনুমান রাজনৈতিক মহলের।

Vinkmag ad

Eastern Times

Read Previous

চাকরির পেছনে না ছুটে নিজে বস হও: তরুণদের শেখ হাসিনা

Read Next

ময়দানের মালিদের পাশে মহামেডান ও খেল ফাউন্ডেশন

Leave a comment

You have successfully subscribed to the newsletter

There was an error while trying to send your request. Please try again.

easterntimes will use the information you provide on this form to be in touch with you and to provide updates and marketing.