Breaking News

বিশ্বের দীর্ঘতম সুড়ঙ্গ পথের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

Prime Minister Narendra Modi inaugurated the world's longest tunnel

Prime Minister Narendra Modi inaugurated the world’s longest tunnel

ইস্টার্ন টাইমস ,নতুন দিল্লি : বিশ্বের দীর্ঘতম সুড়ঙ্গ পথের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী । প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত অটল বিহারী বাজপেয়ীর স্বপ্নপূরণের এই মুহূর্তটিকে ‘‌ঐতিহাসিক দিন’‌ হিসাবে বর্ণনা করেছেন মোদী।

প্রধানমন্ত্রী জানালেন, এই সুড়ঙ্গটি ভারতের সীমান্তের কাঠামোকে আরও শক্তিশালী করবে। বিশ্বের দীর্ঘ সুড়ঙ্গপথ ‘অটল টানেল’ সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১০ হাজার ফুট উঁচুতে হিমালয়ের পির পাঞ্জল রেঞ্জে আধুনিক প্রযুক্তির সাহায্যে তৈরি হয়েছে । দৈর্ঘ্য ৯.২ কিলোমিটার।প্রধানমন্ত্রী মোদী ছাড়াও শনিবারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ছিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াত ও সেনা প্রধান এম এম নারাভানে।

শীতে বরফ পড়ায় কারণে হিমাচল প্রদেশের মানালি থেকে লেহ সড়কপথ ৬ মাস বন্ধ থাকে। ‘অটল টানেল’র মাধ্যমে এবার সারাবছরই এই পথে সংযোগ রক্ষা করা সম্ভব হবে। এখন মানালি থেকে লাদাখের লেহ যাত্রার সময় বাঁচবে ৪ থেকে ৫ ঘণ্টা। উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেছেন, ‘অটল টানেলের’ ফলে ভারতীয় সীমান্ত পরিকাঠামো পোক্ত হল। সীমান্ত সংযোগ বিশ্ব পর্যায়ের হল। সীমান্ত পরিকাঠামো উন্নয়নের দাবি অনেক দিনের। কিন্তু এর আগে হয় সেই পরিকল্পনা হয়নি, অথবা শুরু হলেও মাঝপথেই থমকে গিয়েছে। সংযোগ উন্নতি ঘটাতে সহায়তা করে। সীমান্তে সংযোগের উন্নতি দেশের সুরক্ষার সঙ্গে সম্পৃক্ত।’উল্লেখ্য ,শীতকালে লাদাখের পরিস্থিতি কেমন থাকবে? বর্তমানে ভারত-চিন সীমান্ত সুরক্ষায় এটাই অন্যতম চর্চার বিষয়।

লাদাখের খুব কাছে আকসাই চিন, জিনজিয়াং এবং তিব্বতে সেনা মোতায়েন রেখেছে চিন। জবাবে ভারতও সৈন্য বহর বাড়িয়েছে লাদাখে। তারই মাঝে সীমান্তে শান্তি ফেরানোর আলোচনা চলছে দুই দেশের মধ্যে। এই আবহেই উদ্বোধন হল ‘অটল টানেলে’র। এই টানেলের মাধ্যমে এবার শীতকালেও লাদাখে পৌঁছবে সেনা যান। শীতকালে এবার লাদাখে সুবিধাজনক অবস্থায় থাকবে ভারতীয় সেনাবাহিনী।

২০০০ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী সুড়ঙ্গপথটি নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। সুড়ঙ্গপথ নির্মাণে সময় ধার্য হয়েছিল ৬ বছর। তবে শেষ হতে হতে লেগে গেল ১০ বছর। মোদী জমানায় প্রয়াত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর নামে এই পথের নামকরণ করা হয়।মানালি থেকে লাহুল–স্পিতি উপত্যকা হয়ে সোজা লে।অশ্বখুরাকৃতি এই টানেলটি সিঙ্গেল টিউব, ডাবল লেন টানেল।পর্যটকদের কাছে বিশেষ আকর্ষণের জায়গা নেবে। দীর্ঘ টানেলটিতে থাকবে ভিউ পয়েন্টও। যাতে টানেলে আগুন লেগে গেলে বিপদে না পড়ে কেউ, তার জন্য ভেতরে অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রের ব্যবস্থা করা হয়েছে।টানেলের মধ্যে ৩.৬×২.২৫ মিটার ফায়ার প্রুফ জরুরি এক্সিট রয়েছে। রাস্তাটি ১০.‌৫ মিটার চওড়া। রাস্তার দু’‌‌পাশেই রয়েছে এক মিটারের পায়ে হেঁটে চলার পথ। প্রতি ৬০ মিটার অন্তর সিসিটিভি লাগানো হয়েছে। উপরন্তু‌‌ আপত্‍কালীন পরিস্থিতিতে টানেল থেকে বেরনোর পথ রয়েছে প্রতি ৫০০ মিটার অন্তর।টানেলের ওভারহেড ক্লিয়ারেন্স ৫.৫২৫ মিটার।

Vinkmag ad

Eastern Times

Read Previous

প্রশাসনের উপেক্ষায় করোনা আক্রান্ত মানুষরা আর সরকারি পরিষেবার ওপর নির্ভর করছে না

Read Next

পদত্যাগ করলেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের ডিন

Leave a comment

You have successfully subscribed to the newsletter

There was an error while trying to send your request. Please try again.

easterntimes will use the information you provide on this form to be in touch with you and to provide updates and marketing.