Breaking News

৯ কোটি কৃষককে ১৮ হাজার কোটি টাকা অনুদান প্রধানমন্ত্রীর

The Prime Minister has given a grant of Tk 16000 crore to 9 crore farmers

কৃষক আন্দোলন বিরোধী প্রচার কর্মসূচি শুরু বিজেপির

ইস্টার্ন টাইমস , নয়াদিল্লি: বিধানসভা ভোটের আগে বাংলার কৃষকদের বঞ্চনার কথা তুলে ধরে মমতা সরকারকে নিশানা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। রাজনৈতিক স্বার্থেই পশ্চিমবঙ্গে প্রধানমন্ত্রী কিষাণ সম্মান নিধি প্রকল্প চালু করা হয়নি বলে অভিযোগ মোদীর। তিনি বলেছেন,এখন আর বিভ্রান্তির সুযোগ নেই। টাকা সোজা অ্যাকাউন্টে চলে যায়।

আজ দেশের সব রাজ্যের সরকার এই যোজনার সঙ্গে জুড়ে গিয়েছেন। শুধু পশ্চিমবঙ্গে ৭০ লক্ষ কৃষক এই যোজনা থেকে বঞ্চিত। বাংলার সরকার রাজনীতির কারণে কৃষকদের সরকারি প্রকল্প থেকে দূরে রেখে দিয়েছে। কৃষক বিদ্রোহের মাঝেই এ দিন ৬ রাজ্যের কৃষকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী।

সেখানেই মমতা সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন তিনি।শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী কিসান সম্মান নিধি যোজনার মাধ্যমে ৯ কোটি কৃষি পরিবারকে ১৮,০০০ কোটি টাকা পাঠান প্রধানমন্ত্রী ।

কৃষকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকের সময় বোতামের এক চাপে এই টাকা কৃষকদের অ্যাকাউন্টে ওই টাকা দেওয়া হয়।আন্দোলনরত কৃষকদের আলোচনার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সরকার আপনাদের সব সমস্যা নিয়ে খোলা মনে আলোচনা করতে তৈরি। আপনারা তথ্য পরিসংখ্যান ও যুক্তি দিয়ে আলোচনায় বসুন। আপনাদের সব সমস্যা সরকার যথাসাধ্য সমাধানের চেষ্টা করবে।”

পাশাপাশি এদিন থেকেই রাজধানীর সীমান্তে হাজার হাজার কৃষকদের আন্দোলন চলার মধ্যেই বিজেপি নেতাদের এক নতুন কর্মসূচি শুরু হয়েছে।

তা হল দেশের বিভিন্ন জায়গায় কৃষকদের সঙ্গে মিলিত হয়ে তাঁদের অভাব অভিযোগের কথা শোনা। এই কর্মসূচির অংশ হিসাবেই প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের নজরকাড়া প্রচারে ইতিমধ্যেই উদ্যোগ নিয়েছিল গেরুয়া শিবির। বড়দিনে কৃষকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বক্তৃতা শুনতে কোনও না-কোনও জমায়েতে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও দলীয় সাংসদদের।

প্রতিটি ব্লকে কৃষক, আমজনতাকে জমা করে বড় স্ক্রিন লাগিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতা প্রচারিত হয়।বিজেপি সূত্রের খবর, প্রায় ১৯ হাজার জমায়েতে মোদীর বক্তব্য পেশ করা হয়।

শুধু উত্তরপ্রদেশেই ৩ হাজার জায়গায় জমায়েত হয়। বিজেপি নেতাদের দাবি, এই জমায়েত ও কৃষকদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর আলাপচারিতা থেকেই স্পষ্ট হয়ে গেল, দিল্লির সীমানায় আন্দোলন চললেও দেশের কৃষকেরা আসলে মোদী সরকারের সঙ্গেই রয়েছে।

এদিন প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে বার বার এসেছে পশ্চিমবঙ্গের প্রসঙ্গ। তৃণমূল কংগ্রেসের সরকারের সাথে সাথে বামেদেরও আক্রমণ করেন মোদী।বলেন , ‘বামপন্থীরা ৩০ বছরের বেশি সময় সরকারে ছিল, আজ কৃষকরা যখন মমতার রাজনীতির কারণে কেন্দ্রীয় প্রকল্প থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

সেই বামেরা কোনও আন্দোলন করছে না।’ মোদীর আলাপচারিতার আগে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার। তাঁরও অভিযোগ, প্রধানমন্ত্রী কিষাণ সম্মান নিধি প্রকল্পের বিরোধিতা করছে একমাত্র বাংলা। সেই কারণেই বাংলার কৃষকরা এই টাকা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হলেন।

কেন্দ্রীয় কৃষি আইনের বিরোধীতায় দিল্লি সীমানায় চলছে কৃষক বিক্ষোভ। কেন্দ্র-আন্দোলনকারী কৃষক সংগঠনগুলোর মধ্যে আলোচনাতেও মেলেনি সমাধান।কিষাণ সেনা-র ব্যানারে কৃষি আইনের সমর্থনে বিজেপি কর্মীরা রাস্তায় নেমেছেন বলেই মনে করছেন আন্দোলনকারী সংগঠনগুলি।

মোদীর ভাষণও লোক দেখানো ও চাষিদের মধ্যে বিভাজন তৈরির চেষ্টা বলে তাঁদের ধারণা।তবে বিভাজনের এই কৌশল সফল হবেনা বলেই দাবি কৃষক সংগঠনগুলির।

Vinkmag ad

Eastern Times

Read Previous

আমেরিকায় বর্ণ বৈষম্য ও কয়েকটি মৃত্যু

Read Next

মুস্তাক আলি ‘টি টোয়েন্টি’র প্রস্তুতির জন্য জিমে বাংলা দল

Leave a comment

You have successfully subscribed to the newsletter

There was an error while trying to send your request. Please try again.

easterntimes will use the information you provide on this form to be in touch with you and to provide updates and marketing.