Breaking News

বামেদের লোভী, বিজেপিকে ভোগী এবং নিজেকে ত্যাগী বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

Mamata Banerjee called the left greedy the BJP a victim and self-sacrificing

ইস্টার্ন টাইমস ,কলকাতা: বুধবার বাঁকুড়ার জনসভা থেকে বামেদের লোভী, বিজেপিকে ভোগী এবং নিজেকে ত্যাগী বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কর্মীদের ত্যাগী হওয়ার পরামর্শও দিলেন দলনেত্রী। অনেকদিন পর বামেদের আক্রমণ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।সম্ভবত বাম-কংগ্রেস ঐক্যবদ্ধভাবে আগামী বিধানসভায় লড়ার সিদ্ধান্ত নিতেই এবার বিজেপির পাশাপাশি বাম-কংগ্রেসকেও আক্রমণের নিশানায় আনলেন তিনি।

সভার শুরুতেই ৩৪ বছরে বাঁকুড়ায় বামেদের পুরনো খতিয়ান তুলে ধরেন মমতা।এদিনের জনসভা থেকে বাঁকুড়া, জঙ্গল মহলে বামেদের অত্যাচার নিয়ে সরব হন তৃণমূল নেত্রী।

জনসভায় উপস্থিত দর্শকদের উদ্দেশ্য করে মমতা প্রশ্ন করেন, ‘বাঁকুড়ার মানুষ কি সেই সব অত্যাচারের দিন ভুলে গিয়েছেন?’

সিপিএমের সেই হার্মাদরাই আজ রঙ বদলে বিজেপির কর্মীতে পরিণত হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

সিপিএম নেতারা সারদা-নারদা মামলা থেকে বাঁচতে বিজেপির পায়ে পড়ে গিয়েছে বলেও কটাক্ষ করেন তৃণমূল নেত্রী। যদিও প্রায় ১০ বছরের শাসন কালে তাঁর পুলিশ, তাঁর গোয়েন্দা এজেন্সি এখনো কেন কোনো বাম নেতার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারেননি সেই প্রসঙ্গে একটি শব্দ উচ্চারণ করেননি তিনি।

এদিনের জনসভা থেকে তাঁর চ্যালেঞ্জ, ‘ক্ষমতা থাকলে আমাকে জেলে ভরে দিন । সেখান থেকেও তৃণমূলকে বাংলায় ক্ষমতায় আনব।’ এ প্রসঙ্গে তিনি বিহারের লালুপ্রসাদ যাদবের উদাহরণও টেনে আনেন।

বিহারে ম্যানুপুলেশন করে বিজেপি এবার ক্ষমতায় এসেছি বলে দাবি করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।এদিনের জনসভা থেকে কেন্দ্রীয় সরকার প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘সারা বছর রাজ্যের মানুষকে দেখে না।

নির্বাচনের আগে এলাকার মানুষের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ১০ হাজার টাকা করে দিচ্ছে কেউ কেউ।’ আবার পুলিশের বিভিন্ন দপ্তরে যাঁরা কাজ করেন তাঁদের হাত দিয়ে টাকা পাঠানো হচ্ছে।

হঠাৎ নিজের পুলিশের বিরুদ্ধে এদিনের সভায় বক্তব্য রাখলেন কেন তার কোনো সদুত্তর নেই।

কেন্দ্রীয় কৃষি আইন, ১০০ দিনের কাজ-সহ একাধিক ইস্যুতেও সরব হয়েছেন তিনি। তাঁর অভিযোগ, ‘১০০ দিনের কর্মীরা সঠিক সময় টাকা পাচ্ছেন না। কারণ সেই টাকা সুদে খাটাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। কেন্দ্র বাংলা থেকে করের টাকা নিয়ে যায়। সেই টাকাই আবার রাজ্যকে দেয়। আলাদা করে কিছুই দেয় না।’

এদিনের জনসভা থেকে নাম না করে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়কেও আক্রমণ করেন তিনি। তিনি বলেন, ‘কিছু মানুষের কোনও কাজ নেই, সকাল থেকে শুধু টুইট করে যান।’

উল্লেখ্য, বুধবার বাংলার কৃষকদের কেন্দ্রীয় প্রকল্পের টাকা না দেওয়া নিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে টুইট করেছেন রাজ্যপাল।

মমতার দাবি, ‘আমি চ্যালেঞ্জ করে বলছি, ‘কৃষকদের প্রকল্পের টাকা চেয়ে কেন্দ্রকে চিঠি দিয়েছিলাম। বলেছিলাম, রাজ্যকে টাকা পাঠিয়ে দিন, আমরা কৃষকদের দিয়ে দেব। কিন্তু তাঁরা টাকা পাঠায়নি।’

প্রসঙ্গত কেন্দ্রীয় প্রকল্পের টাকা কৃষকদের ব্যাংক একাউন্টে সরাসরি দেবার কথা জানিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার।

এ রাজ্যের কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা বারবার অভিযোগ করেছিলেন রাজ্য সরকারের হাতে টাকা দিলে সেই টাকা কৃষকদের কাছে সঠিকভাবে রাজ্য সরকারের মাধ্যমে নাও পৌঁছাতে পারে।

Vinkmag ad

Eastern Times

Read Previous

তৃণমূল কংগ্রেসকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন দিলীপ ঘোষঃ বিজেপির কর্মীদের উপর হামলায় উতপ্ত নানুর

Read Next

ডার্বির আগে নতুন পদ্ধতিতে অনুশীলন লাল হলুদে, জল্পনা সপ্তম বিদেশি নিয়েও

Leave a comment

You have successfully subscribed to the newsletter

There was an error while trying to send your request. Please try again.

easterntimes will use the information you provide on this form to be in touch with you and to provide updates and marketing.