Breaking News

বনধে রাজ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া , রেল-সড়ক অবরোধ ,জেলায় বিক্ষিপ্ত অশান্তি

ইস্টার্ন টাইমস ,কলকাতা: ১৬টি শ্রমিক সংগঠনের ডাকে দেশজুড়ে সাধারণ ধর্মঘট। ধর্মঘটে সামিল হয়েছে বাম ও কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠন গুলি। তবে বনধে সামিল হয়নি তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত আইএনটিটিইউসি এবং আরএসএসের শ্রমিক সংগঠন।রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় বিক্ষিপ্ত অশান্তির হলেও দেশ জুড়ে ধর্মঘটের আংশিক প্রভাব কলকাতায়।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে পথে নামেন বাম এবং কংগ্রেসের কর্মী-সমর্থকেরা।

বিক্ষোভ-পথ অবরোধ-মিছিল করে ধর্মঘটের সমর্থন জানান তাঁরা  বৃহস্পতিবার সড়ক এবং রেল অবরোধ করেছে বামেরা। সকাল থেকে তাই বারবার ব্যহত হয়েছে রেল পরিষেবা। বিপর্যস্ত জনজীবন। বনধ প্রতিরোধের জন্য পাল্টা রাস্তায় নেমেছে পুলিশ। বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে জায়গায় জায়গায় সংঘর্ষও দেখা গেছে। জেলায় জেলায় বিক্ষিপ্ত অশান্তির ছবি দেখা গেছে।

বিশেষত কুচবিহার এবং বারসতে।দক্ষিণ কলকাতায় গড়িয়ার বিভিন্ন জায়গায় ধমর্ঘটের সমর্থনে মিছিল বার করে বামেরা।

কামালগাজি মোড়ে সরকারি বাস থামিয়ে যাত্রীদের নেমে যাওয়ার অনুরোধ জানানো হয়। অটো দাঁড় করিয়ে যাত্রীদের নেমে যেতে বলা হয় ধর্মঘটীদের তরফে। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে উত্তেজনা থাকায় মোতায়েন করা হয় প্রচুর পুলিশ।ধর্মতলা মোড়ে সরকারি বাস চলাচল করলেও তাতে যাত্রী সংখ্যা অত্যন্ত কম। রাস্তার মোড়ে মোড়ে বসেছে পুলিশ পিকেট।

 Mixed reactions in the state rail-road blockade sporadic unrest in the district

কলকাতার অন্যতম ব্যস্ত এলাকা মৌলালি মোড় ছিল এদিন ফাঁকা।

সকাল থেকেই শিয়ালদহের বিভিন্ন শাখায় রেল চলাচল ব্যহত করেন ধর্মঘটী বাম ও কংগ্রেস সমর্থকরা। শ্যামনগরে রেল অবরোধ করা হয়। চূচুড়া স্টেশনেও রেল অবরোধে আটকে পড়ে রেল।

অবরোধ করা হয় ডায়মন্ডহারবার-লক্ষ্মীকান্তপুর শাখাতেও। শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখার ডায়মন্ড হারবার শাখায় মগরাহাট ও হোটর স্টেশনের মাঝে রেললাইন অবরোধ করেছে বামেরা। লক্ষ্মীকান্তপুর শাখায় দক্ষিণ বারাসাত ও মথুরাপুর স্টেশনের মাঝে অবরোধ করে ধর্মঘটীরা। বজবজ ছাড়া শিয়ালদহ দক্ষিণের সমস্ত শাখাতেই একসময় বন্ধ হয়ে যায় ট্রেন চলাচল।

অন্যদিকে, শিয়ালদহ মেন শাখায় বেলঘরিয়া স্টেশন ও ইছাপুর স্টেশনেও রেল অবরোধ হয়। মধ্যগ্রাম স্টেশনে বচসা শুরু হয় ধর্মঘটী এবং নিত্যযাত্রীদের মধ্যে। হাবড়া স্টেশনের টিকিট কাউন্টারে ব্যাপক ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠে। জখম ১ রেল কর্মী। বসিরহাটে রেল লাইনে অবরোধ হয়। তবে শিয়ালদহের দূরপাল্লার ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক।

হাওড়া স্টেশনে ট্রেন পরিষেবা স্বাভাবিকথাকলেও যাত্রীসংখ্যা অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেকটাই কম। বেসরকারি বাস তুলনামূলকভাবে এদিন রাস্তায় কম নামে।

তবে সকাল থেকে প্রচুর সরকারি বাস রাস্তায় নামলেও তাতে যাত্রী সংখ্যা স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক কম। হাওড়া স্টেশনের প্রিপেড ট্যাক্সি স্ট্যান্ড ফাঁকা। স্টেশনে পৌঁছে সমস্যায় যাত্রীরা।

অন্যদিকে, সেন্ট্রাল মেট্রো স্টেশনে ঢুকে পড়ার চেষ্টা করেন ধর্মঘটীরা। চাঁদনিচক মেট্রো স্টেশন বন্ধের চেষ্টাও করেন বাম কর্মীরা। পাশাপাশি লেনিন সরণিতে জোর করে দোকান বন্ধের অভিযোগ ওঠে বামেদের বিরুদ্ধে। রাজাবাজারে ধর্মঘটীদের বিক্ষোভে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

 Mixed reactions in the state rail-road blockade sporadic unrest in the district

যাদবপুরে সুজন চক্রবর্তীর নেতৃত্বে এ দিন রেল অবরোধ চলে। অশান্তি দেখা যায় বারাসাতেও। লাঠিচার্জ করে ধর্মঘটীদের সরাতে গেলে ধস্তাধস্তি শুরু হয় পুলিশ এবং ধর্মঘটীদের মধ্যে।

এ দিকে প্রতিবারের মতো এবারও রাজ্য সরকারের তরফে ধর্মঘটে সরকারি কর্মীদের হাজিরা বাধ্যতামূলকের নোটিফিকেশন জারি করা হয়েছে।

ধর্মঘটে যাতে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যায় তার জন্য ৫ হাজার পুলিশকর্মী মোতায়েন করেছিল রাজ্যপ্রশাসন।

এদিকে কলকাতা বিমানবন্দরে বিমান পরিষেবা স্বাভাবিকথাকলেও বিমানবন্দরের পৌঁছাতে অসুবিধায় পড়তে হয় যাত্রীদের। দূরের যাত্রীরা আগে থেকেই অনেক আগে চলে আসেন বিমানবন্দরের।

বামেদের ডাকা ধর্মঘট ঘিরে দমদমেও অশান্তি ছড়ায়। সকাল ৭টা নাগাদ দমদম স্টেশনের কাছে দমদম রোড অবরোধ করেন বাম কর্মী-সমর্থকরা। তৃণমূল কর্মীরা বাধা দেওয়ায় উত্তেজনা ছড়ায়।

ধর্মঘটে খিদিরপুর বন্দর এলাকায় পণ্য পরিবহণ স্বাভাবিক থাকলেও খিদিরপুরে সরকারি বাস ডিপোয় যাত্রী সংখ্যা ছিল অন্যান্য দিনের তুলনায় যথেষ্ট কম।

বন্‌ধের প্রভাবেএদিন হলদিয়া শিল্পাঞ্চলের স্বাভাবিক কাজকর্ম ব্যাহত হয়। জলপাইগুড়িতে জোর করে দোকানপাট বন্ধের অভিযোগ ওঠে ধর্মঘটীদের বিরুদ্ধে। উত্তরবঙ্গের চা বাগানেও এদিন দেখা পাওয়া যায়নি শ্রমিকদের। ধর্মঘটের ফলে চা বাগান গুলি ছিল বন্ধ। খড়গপুরে পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হয় ধর্মঘটীদের।

 Mixed reactions in the state rail-road blockade sporadic unrest in the district

বেলা ১২ টায় বন্‌ধ সফল করতে মিছিলে অংশ নেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসুর।

এদিন শ্যামবাজারে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক জোর করে বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে ধর্মঘট সমর্থকদের বিরুদ্ধে। ব্যাংকের গেটের সামনে বসে পড়েন ধর্মঘটীরা।

চুঁচুড়ায় বন্ধ ছিল ফেরি পরিষেবা। দফায় দফায় উত্তেজনা ছড়ায় এদিন কোচবিহারে। বেলা বাড়ার পর ফের বাসে ভাঙচুর চালায় ধর্মঘটীদের একাংশ।
দুর্গাপুরের ডিভিসি মোড় সংলগ্ন NH২ অবরোধকে কেন্দ্র করে পুলিশ ধর্মঘট সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। বন্ধ সমর্থনকারীদের উপর লাঠিচার্জ করে পুলিশ।

আটক করা হয় ৭০ জন বাম কর্মী-সমর্থক। জেলা কমিটির সদস্য আহত হন। বিটি রোডেও ধর্মঘটীদের ওপর লাঠিচার্জ করে পুলিশ।

পুলিশ-ধর্মঘটীদের বচসায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পূর্ব মেদিনীপুর।

রণক্ষেত্র চেহারা নেয় বারাসতের হেলাবটতলা। ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে ধর্মঘটীদের উপর লাঠিচার্জ করে পুলিশ। নামানো হয় ব়্যাফ। বারাসতের ডাকবাংলো মোড়েও উত্তেজনা ছড়ায়। দফায় দফায় মিছিল করে বাম কংগ্রেস। এসএফআই-পুলিশ ধস্তাধস্তিতে আক্রান্ত ১।

বন্‌ধে শুনশান মালবাজার। দুর্গাপুর স্টেশনে ধর্মঘটীদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন ধর্মঘটী ও পুলিশ। ডোমজুড় স্টেশনের কাছে গাছের গুঁড়ি ফেলে বিক্ষোভ দেখায় ধর্মঘট সমর্থনকারীরা।

বাঙ্গুর এভিনিউতে পুলিশের সঙ্গে কথা কাটাকাটি ও ধস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পড়েন ধর্মঘট সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশ।

শ্রীরামপুর ও চন্দননগরেও কাল থেকে শুরু হয় রাস্তা অবরোধ। ব্যহত ট্রেন চলাচল।

কোচবিহারের বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষিপ্ত অশান্তির খবর পাওয়া যায়। বাসে ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠে বনধ সমর্থক কারীদের উপর। টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ দেখান তারা।

Vinkmag ad

Eastern Times

Read Previous

আর্জেন্টিনায় তিন দিনের জাতীয় শোক ঘোষণা

Read Next

নেপোলির পর কলকাতায় এত ভালোবাসা পেলাম’

Leave a comment

You have successfully subscribed to the newsletter

There was an error while trying to send your request. Please try again.

easterntimes will use the information you provide on this form to be in touch with you and to provide updates and marketing.